সন্তানের ‘বডিগার্ড’ ও ‘ইনফর্মার’ হিসেবে কাজ করবে স্মার্ট অাইডি কার্ড! কমবে অভিভাবকের দুঃশ্চিন্তা!

0
40
স্মার্ট আইডি কার্ড

স্টুডেন্ট অাইডি কার্ড বলতে অামরা শিক্ষার্থীর একাডেমিক পরিচয়পত্রকেই বুঝি, যা মোটা কাগজ বা প্লাস্টিক দ্বারা তৈরি। শিক্ষার্থীর নাম, অাইডি, শ্রেণি, প্রতিষ্ঠানের পরিচয় ওখানে থাকে। কিন্তু স্মার্ট অাইডি কার্ডের নাম আমরা বেশিরভাগ লোকই শুনিনি কখনো। দেখিওনি জীবনে।

ছাত্রদের Smart Student ID Card দিয়ে অভিভাবকদের অবাক করে দিয়েছে ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজ। সেই সাথে দিয়েছে স্বস্তি। এই অাইডি কার্ডের সুবিধাগুলো জানার পর সারা জীবন ধরে জেনে অাসা স্টুডেন্ট অাইডি কার্ড সম্পর্কে অামার ধারণা বদলে গেলো। সন্তানকে স্কুল-কলেজে পাঠিয়ে যেসব বাবা-মা নানাবিধ চিন্তায় অস্থির থাকেন, তাদের জন্য এই স্মার্ট অাইডি কার্ডটি স্বস্তি ও নির্ভরতার জায়গা। সন্তানের একজন দক্ষ বডিগার্ড ও ইনফর্মার হিসেবে কাজ করবে এই অাইডি কার্ড। সন্তানকে স্কুলে পাঠিয়ে শতভাগ নিশ্চিন্তে থাকার নিশ্চয়তা দেবে এটা। বাবা মায়ের স্মার্ট ফোনে থাকা একটি অ্যাপের মাধ্যমে সন্তানের সারা দিনের অবস্থান, ক্লাস সিডিউল, হোম ওয়ার্ক, পরীক্ষার রুটিন, উপস্থিতি, রেজাল্ট, যাবতীয় নোটিশ ছাড়াও অারো অনেক সুবিধা পাওয়া যাবে এই কার্ডের মাধ্যমে।

এই অাইডি কার্ডে শিক্ষার্থীর বাবা, মা ও প্রতিষ্ঠান প্রধানের মোবাইল নম্বর সেট করা অাছে। নির্দিষ্ট বোতামে চাপ দিলেই নির্দিষ্ট জনের কাছে কল চলে যায়। তাছাড়া, বাবা মাও কল করে সন্তানের সাথে কথা বলতে পারেন। জরুরি কিংবা বিপদের সময় ইমার্জেন্সি বোতামে চাপ দিলে একসাথে বাবা, মা ও প্রতিষ্ঠান প্রধানের কাছে কল চলে যায়। এতে যেকোনো জরুরি প্রয়োজন কিংবা বিপদের সময় বাবা-মা সন্তানের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন। তবে, স্কুলে প্রবেশ করার পর এন্ট্রি ম্যাসেজ সেন্ট হওয়ার সাথে সাথে কার্ডটির সকল অপশন বন্ধ হয়ে যায়। তাই, এ সময়ে অযথা কল অাদান-প্রদান করে সময় নষ্ট করার সুযোগ পাবে না কোনো শিক্ষার্থী। স্কুল ত্যাগের সাথে সাথে কার্ডটি সক্রিয় হয়ে যায়। উল্লেখ্য, বাবা, মা (বা দুইজন অভিভাবক) ও প্রতিষ্ঠান প্রধানের মোবাইল নম্বর ছাড়া অন্য কোনো মোবাইল নম্বরের সাথে এই কার্ডের মাধ্যমে কল অাদান-প্রদানের কোনো সুযোগ নেই। তাই, ইচ্ছে করলেই কোনো শিক্ষার্থী অন্য কারো সাথে যোগাযোগ করতে পারবে না।

স্মার্ট আইডি কার্ড। ১, ২, ৩ নম্বর বোতামের মাধ্যমে ৩টি নির্ধারিত নাম্বারে ফোন কল করা যাবে।

এই স্মার্ট অাইডি কার্ড নিয়ে শিক্ষার্থী স্কুলে প্রবেশ করা মাত্র সয়ংক্রিয়ভাবে বাবা-মায়ের মোবাইলে এন্ট্রি ম্যাসেজ চলে অাসে। তারপর কার্ডটি ক্লাস মুডে চলে যায়। স্কুল ত্যাগ করার সাথে সাথে বাবা-মায়ের মোবাইলে এক্সিট ম্যাসেস চলে অাসে এবং সাথে সাথে কার্ডটি মুড পরিবর্তন হয়ে নর্মাল অর্থাৎ ইউজেবল হয়ে যায়। তাই বাবা-মা যেখানেই থাকেন না কেনো, সন্তানের স্কুলে প্রবেশ ও স্কুল ত্যাগের সঠিক সময়টা জেনে নিশ্চিত হতে পারবেন এখন থেকে। এই অভিনব ডিভাইসের স্টুডেন্ট অাইডি কার্ড প্রদান করেছে ক্যামব্রিয়ানের স্কুল এন্ড কলেজ!

এটি হচ্ছে অভিভাবকের মোবাইলের এপ। এপের মাধ্যমে স্কুলে প্রবেশের সময়, বের হওয়ার সময়, হোমওয়ার্ক করেছে কিনা , বর্তমান অবস্থান সব জানা যাবে

এই কার্ডের অারেকটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো, এর লোকেশন ট্রেকিং সিস্টেম। সন্তান স্কুল ত্যাগ করার সাথে সাথে সয়ংক্রিয়ভাবে কার্ডটির জিপিঅারএস চালু হয়ে যায়। ফলে, স্কুল থেকে বের হয়ে শিক্ষার্থী কোথায় কিংবা কোন দিকে যাচ্ছে, তার সুনির্দিষ্ট অবস্থান স্মার্টফোনের মাধ্যমে তিনটি ভিউ মুডে বাবা-মা দেখতে পাবেন বিশ্বের যেকোনো জায়গা থেকে। এ বিষয়টা অামাদের মতো প্রত্যেক বাবা মায়ের জন্যই স্বস্থিদায়ক এবং বিপদে সহায়ক। সন্তান বাসার বাইরে থাকলেও বাবা মায়ের সামনে থাকার এই প্রযুক্তিগত সুবিধা দেয়ার জন্য ক্যামব্রিয়ানের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা।

সন্তানের লেখাপড়া সম্পর্কিত যাবতী তথ্য, যেমন: ক্লাস রুটিন, হোম ওয়ার্ক, পরীক্ষার সূচি, রেজাল্ট, উপস্থিতি (দিন, সপ্তাহ, মাস ও বছরভিত্তিক গ্রাফ করে দেখা যাবে), নোটিশসহ প্রতিষ্ঠান শিক্ষার্থীর যাবতীয় তথ্য সয়ংক্রিয়ভাবে চলে অাসবে বাবা মায়ের স্মার্টফোনে। ঘরে বসেই করা যাবে ছুটির অাবেদন ও শিক্ষকের সাথে লাইভ চ্যাট।

এই ব্যস্ততার যুগে অনেক বাবা মা-ই সন্তানের লেখাপড়া ও গতিবিধির খবরাখবর ঠিক মতো রাখতে পারেন না। সন্তানও অনেক কিছু গোপন করে বাবা মায়ের কাছে। এই অাইডি কার্ড সব কিছু চোখের সামনে নিয়ে আসবে খুব সহজে!

সবগুলো স্কুলে এরকম স্মার্ট আইডি কার্ড চালু করলে সন্তানের ক্লাস ফাঁকি দেয়া কিংবা নিরাপত্তা নিয়ে অভিভাবকদের দুঃশ্চিন্তা লাঘব হবে।

– মনিরুল মোমেন