রিয়াল মাদ্রিদ : লস ব্লাঙ্কোসদের ইতিহাস

0
31
রিয়াল মাদ্রিদ

নামটি শুনলেই হৃদয় খানিকটা থমকে যেতে চায়৷
কে খেলেন নি এই দলে,আলফ্রেডো ডি স্টেফানো থেকে শুরু করে,রাউল গন্জালেস,জিনেদিন জিদান,রোনালদো লিমা,পুসকাস,ইকার ক্যাসিয়াস,ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো সহ যুগে যুগে অনেক রথী-মহারথীই গায়ে জড়িয়েছেন এই সাদা জার্সিটি৷
৩৩ লা-লীগা ও ১২টি চ্যাম্পিয়নস লীগ নিয়ে এই রিয়াল মাদ্রিদই ইতিহাসের সবচেয়ে সফলতম ক্লাব৷
বিংশ শতাব্দির সেরা ক্লাবের পুরষ্কারও এই রিয়াল মাদ্রিদের কাছেই৷
তাই তো অনেকেই বলে থাকেন,

“ঐ সাদা জার্সিটি রক্তে লাল হয়ে যাবে,ঘামে ভিজে যাবে,কাদায় কর্দমাক্ত হবে,তবুও কখনো পরাজয়ের গ্লানি বহন করবে না৷”

শতাব্দির সেরা এই ক্লাবটির যাত্রা শুরু হয় ১৯০২ সালের ৬ মার্চ জুয়ান পাদ্রসের হাত ধরে৷
বর্তমান রিয়াল মাদ্রিদের হোম গ্রাউন্ড সান্তিয়াগো বার্নাব্যু হলেও এর যাত্রা শুরু হয়েছিলো ১৯৪৭ সালের ১৪ ডিসেম্বর৷
এর আগে হোম গ্রাউন্ড হিসেবে বিভিন্ন মাঠ ব্যবহার করলেও রিয়াল মাদ্রিদ তাদের প্রথম স্প্যানিশ লীগ জিতেছিলো “Estadio Chamartin” নামক স্টেডিয়ামে৷

সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে স্থানান্তরের আগে এটিই ছিলো মাদ্রিদের হোম গ্রাউন্ড৷
২২৫০০ ধারণক্ষমতার এই স্টেডিয়াম পর্যাপ্ত না হওয়ায় পরবর্তীতে নির্মাণ করা হয় রিয়ালের বর্তমার হোম ভেন্যু Estadio Santiago Bernabeu

১৯৬৪ ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশীপ ফাইনাল,১৯৮২ ফিফা বিশ্বকাপ ফাইনাল,১৯৫৭,১৯৬৯ এবং ১৯৮০ সালের ইউরোপিয়ান কাপ ফাইনাল এবং ২০১০ চ্যাম্পিয়নস লীগের ফাইনালের মতো অনেক বড় বড় ম্যাচ আয়োজনের গৌরব অর্জন করে এই মাঠটি৷
২০০৭ সালের ১৪ ডিসেম্বর সান্তিয়াগো বার্নাব্যুকে “এলিট ফুটবল স্টেডিয়াম” স্বীকৃতি দেয় উয়েফা৷

রিয়াল মাদ্রিদ ক্লাবটিকে লস মেরেংগুয়েস,লস ভাইকিংস,লস ব্লাংকোস সহ বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন নামে ডাকা হয়৷
ইতিহাসের অনেক সেরা খেলোয়াড়ই রিয়াল মাদ্রিদের জার্সি গায়ে জড়িয়েছেন ,এজন্য দলটিকে সম্প্রতি লস গ্যালাক্টিকোস নামেও ডাকা হয়৷

রিয়াল মাদ্রিদ মানেই ইতিহাস৷
১৯০২ সালে যাত্রা শুরুর পর থেকেই একের পর এক রেকর্ড গড়েছে দলটি৷

সর্বোচ্চ ৩৩ বার লা-লীগা জয়ী দলটি সর্বপ্রথম লা-লীগা জয়ের স্বাদ পায় ১৯৩১-৩২ মৌসুমে এবং বর্তমান লা লীগা চ্যাম্পিয়নও রিয়াল মাদ্রিদ৷

সর্বোচ্চ ১২ বার চ্যাম্পিয়নস লীগ জিতে ইউরোপের সর্বশ্রেষ্ঠ আসরেও সবচেয়ে সফল ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ৷
উয়েফা চ্যাস্পিয়নস লীগ নামকরণের পর একমাত্র দল হিসেবে টানা ২ বার চ্যাম্পিয়নস লীগ জেতে গ্যালাক্টিকোসরা৷
এর আগে ১৯৫৫-১৯৬০ সালে টানা ৫বার ইউরোপিয়ান কাপ জেতে রিয়াল৷
এছাড়াও মোট ১৯ বার স্প্যানিশ কোপা দেল রে জেতে দলটি৷

১৯৮৪-৮৫,১৯৮৫-৮৬ সালে দুবার উয়েফা কাপ এবং ২০০২,২০১৪,২০১৬,২০১৭ সালে মোট ৪বার উয়েফা সুপার কাপ জেতা দলটি আন্তর্জাতিক টূর্নামেন্টেও বেশ সফল৷
১৯৬০,১৯৯৮,২০০০ সালে মোট ৩বার ইন্টারকন্টিনেন্টাল কাপ জেতে রিয়াল মাদ্রিদ৷ক্লাব বিশ্বকাপ চালু হওয়ার পর ২০১৪,২০১৬,২০১৭ সালেও ৩বার ক্লাব বিশ্বকাপ জেতে রিয়াল মাদ্রিদ৷
একমাত্র দল হিসেবে টানা ২ বার ক্লাব বিশ্বকাপ জেতার রেকর্ডও তাদের দখলে৷

বর্তমান সময়েও অনেক রথী-মহারথী ফুটবলার গায়ে জড়ায় রিয়াল মাদ্রিদের এই সাদা জার্সিটি,
তারা প্রতিনিধিত্ব করে এমন একটি দলের যে দলটি সবসময়ই সফলতা শব্দটির সমার্থক ছিলো,
যে দলটির কাছে আছে শতাব্দির সেরা ক্লাবের মুকুট,
যে দলটি সবসময় জয়ের জন্য খেলে৷

না,তারা ভয় পায় না৷
তারা শেষ মূহুর্ত পর্যন্ত দাতে দাত চেপে লড়াই করে,তারা সামর্থ্যের সবটুকু দিয়ে জয়ের জন্য লড়াই করে৷
কারণ তারা জানে,

“এই সাদা জার্সিটি কখনো পরাজয়ের গ্লানি বহন করে না!”

-রিফাত হাসান